নলছিটি পৌরসভা থেকে স্বামী-স্ত্রী দম্পত্তিকে বহিষ্কার

নলছিটি পৌরসভার হিসাব রক্ষক রেখা বেগম ও ইলেকট্রিশিয়ান সিরাজুল ইসলাম লিজন ওরফে টুলু কে সাময়িক বরখাস্ত করেছে পৌর পরিষদ। ২৮/৭/২১ তারিখ নলছিটি পৌর পরিষদের এক সভায় তাদেরকে সাময়িক বরখাস্তের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে নলছিটি পৌরসভার মুখপাত্র ৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বীর মুক্তিযোদ্ধা তাজুল ইসলাম দুলাল চৌধুরী জানিয়েছেন।

২৬/৭/২০২১ রাতে
ঝালকাঠি জেলার নলছিটি পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল ওয়াহেদ কবির খান ও পৌরসভার সচিব এএইচএম রাশেদ ইকবালের স্বাক্ষর জাল করে ৪ লক্ষ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাতের চেষ্টাকালে পৌরসভার ক্যাশিয়ার রেখা বেগম ও তার স্বামী পৌরসভার ইলেকট্রিশিয়ান সিরাজুল ইসলাম সেলিম ওরফে টুলুকে আটক করে। এ সময় রেখা বেগমের ভাই মোঃ- কামাল হোসেন টাকা নিয়ে পৌরসভায় এসে পুলিশকে দেওয়ার চেষ্টাকালে ১ লক্ষ ২২ হাজার টাকাসহ আটক করে তিন জনকে পুলিশে সোপর্দ করে।নলছিটি পৌরসভার পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

সরেজমিনে ও পৌরসভা কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, মেয়র ও সচিবের স্বাক্ষর দিয়ে মেসার্স সুগন্ধা এন্টারপ্রাইজের নামে ৪ লক্ষ টাকার একটি চেক নিয়ে ইলেকট্রশিয়ান সিরাজুল ইসলাম ২৬/৭/২১ তারিখ নলছিটি সোনালি ব্যাংক শাখায় উপস্থাপন করলে স্বাক্ষর সঠিক নয় বলে ফেরত দেয়। এরপর পৌরসভার ক্যাশিয়ার রেখা বেগম আরেকটি চেক লিখে টাকা উত্তোলনের অপচেষ্টা চালানোকালীন নলছিটি সোনালি ব্যাংকের ম্যানেজার মেয়রকে ফোন দিয়ে জানতে চান তিনি ৪ লক্ষ টাকার চেক দিয়েছেন কি না? মেয়র আদৌ চেক সম্পর্কে অবগত নন জানিয়ে তিনি কৌশলে পৌরসভার ক্যাশিয়ার রেখা বেগম ও তার স্বামী পৌরসভার ইলেকট্রিশিয়ান সিরাজুল ইসলাম সেলিম ওরফে টুলুর কাছ থেকে জালিয়াতির চেক ও চেক বই উদ্ধার করেন। তাদেরকে পৌরসভার একটি কক্ষে আটক রেখে পুলিশ প্রশাসন কে খবর দেয়া হয়। এদিকে পুলিশকে ঘুষ দিয়ে পার পাওয়া যেতে পারে বলে রেখা বেগম তার ভাই মোঃ কামাল হোসেন কে টাকা নিয়ে পৌরসভায় আসতে বলেন। এক লক্ষ ২২ হাজার টাকা নিয়ে আসামাত্র জনতা তাকে আটক করে। এসময় উক্ত এক লক্ষ ২২ হাজার টাকা জব্দ করা হয়। আটক তিন জন কে পুলিশ থানায় নিয়ে যায়।

পৌরসভার পক্ষ থেকে এজাহার দায়ের করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *